সংবিধানে নাগরিকদের মৌলিক কর্তব্য | Fundamental Duties of Citizens in the Constitution

সংবিধানে নাগরিকদের মৌলিক কর্তব্য | Fundamental Duties of Citizens in the Constitution

❏ সংবিধানে নাগরিকদের মৌলিক কর্তব্য (Fundamental Duties of Citizens in the Constitution):-

■ নাগরিকদের মৌলিক কর্তব্য:-

উত্তর:: ভারতীয় সংবিধানের একটি নতুন বৈশিষ্ট্য হল নাগরিকদের কতকগুলি মৌলিক কর্তব্যের উল্লেখ। ৪২ তম সংশোধন (১৯৭৬) অনুসারে সংবিধানে ভারতীয় নাগরিকদের দশটি মৌলিক কর্তব্যের কথা বলা হয়েছে। সংবিধানের ৫১ – ক অনুচ্ছেদে উল্লিখিত দশটি মৌলিক কর্তব্যের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল : সংবিধান মান্য করা; জাতীয় পতাকা ও জাতীয় সঙ্গীতের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করা; ভারতের সার্বভৌমিকতা, ঐক্য ও সংহতি সমর্থন ও সংরক্ষণ করা; দেশ রক্ষা ও জাতীয় সেবাকার্যে আত্মনিয়োগ করা; নারীজাতির মর্যাদা হানিকর প্রথা পরিহার করা; জাতির মিশ্র সংস্কৃতির গৌরবময় ঐতিহ্য সংরক্ষণ করা; জাতীয় সম্পত্তির রক্ষণাবেক্ষণ করা; হিংসার পথ পরিহার করা প্রভৃতি।

২০০২ সালের ডিসেম্বর মাসে ৮৬ তম সংশোধনী আইন অনুসারে চতুর্থ অধ্যায় ‘ক’ অংশের ৫১ – ক ধারায় আরও একটি মৌলিক কর্তব্যকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। তারফলে মৌলিক কর্তব্যের মোট সংখ্যা দশ থেকে বেড়ে এগার হয়।

নতুন সংযোজিত কর্তব্যটি হল : ছয় থেকে চৌদ্দ বছর বয়সের প্রত্যেক শিশুকে শিক্ষা দানের ব্যবস্থা করতে হবে। এ হল পিতামাতা বা অভিভাবকের মৌলিক কর্তব্য।

■ মৌলিক অধিকার ও মৌলিক কর্তব্যের মধ্যে সম্পর্ক:-

উত্তর:: অধিকার ও কর্তব্য পরস্পরের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে যুক্ত। অধিকারের মধ্যেই কর্তব্যের ধারণা নিহিত আছে। কর্তব্য ছাড়া অধিকার সম্পূর্ণ হয় না। সাধারণতঃ চীনের মত সমাজতান্ত্রিক দেশের সংবিধানেই নাগরিকদের মৌলিক কর্তব্যের উল্লেখ দেখা যায়। তবে জাপানের সংবিধানেও মৌলিক কর্তব্য আছে। ভারতের মূল সংবিধানে নাগরিকের মৌলিক কর্তব্যের কোন উল্লেখ ছিল না।

সংবিধানের ৪২ তম সংশোধনের (১৯৭৬) মাধ্যমে নাগরিকের মৌলিক কর্তব্য ভারতীয় সংবিধানের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এই উদ্দেশ্যে চতুর্থ অধ্যায় – ক (Part IV – A) নামে একটি নতুন অধ্যায় এবং ৫১ (ক) (Art 51A) নামে একটি নতুন ধারা সৃষ্টি করা হয়। এই ধারায় বর্তমানে ভারতীয় নাগরিকদের এগারোটি মৌলিক কর্তব্য উল্লেখ করা হয়েছে। কর্তব্য পালন ছাড়া অধিকার ভোগ করা যায় না। কর্তব্যহীন অধিকার দায়িত্বহীনতা, আলস্য প্রভৃতিকে প্রশ্রয় দেয়। আবার কর্তব্যই হল ভারতীয় রাষ্ট্রদর্শনের মূলকথা। তা ছাড়া সমাজতান্ত্রিক আদর্শের প্রতি ভারতের ঘোষিত অঙ্গীকারের কথাও সুবিদিত। সমাজতান্ত্রিক ব্যবস্থাতেই মৌলিক অধিকার ও মৌলিক কর্তব্যের পাশাপাশি অবস্থান দেখা যায়।

এই সমস্ত কারণে ভারতীয় সংবিধানে মৌলিক কর্তব্যসমূহের সংযুক্তি সংশ্লিষ্ট সকলেই সমর্থন করেছেন। প্রকৃত প্রস্তাবে মৌলিক কর্তব্যগুলির উপর ভারতীয় ঐতিহ্য ও আদর্শের প্রভাবের কথা অস্বীকার করা যায় না। বস্তুতপক্ষে মৌলিক কর্তব্যগুলিকে সংবিধানের অন্তর্ভুক্ত করে ভারতের সনাতন রাজনৈতিক আদর্শকেই প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। সেই বৈদিক যুগ থেকেই শুরু করে জাতীয় আন্দোলনের অধ্যায় অবধি ভারতের সুদীর্ঘ ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যাবে যে সব সময় নাগরিক, সাধারণ মানুষ ও প্রজাদের কর্তব্যের উপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে; তাদের অধিকারের উপর তত গুরুত্ব আরোপ করা হয় নি।